শিরোনাম
Home » Top 10 » ছয় মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ

ছয় মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ

ছয় মাসের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। ৬ বছর আগে করা এক রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে জারি করা রুল নিষ্পত্তি করে গতকাল বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এই রায় দেন। ২০১২ সালে এই রিট আবেদন করেছিলেন ঢাবির ২৫ শিক্ষার্থী। রিটের শুনানি শেষে ওই বছরের ৮ই এপ্রিল রুল জারি করেন হাইকোর্ট। রুলে ডাকসু নির্বাচনের জন্য কেন নির্দেশনা দেয়া হবে না এবং নির্বাচন করার বিষয়ে বিবাদীদের ব্যর্থতা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে চাওয়া হয়। শিক্ষা সচিব, ঢাবির উপাচার্য, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রার ও প্রক্টরের কাছে রুলের জবাব চাওয়া হয়।

গত ১৬ই জানুয়ারি রুলের শুনানি শেষ হয়। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত কুমার তালুকদার। রিটকারীদের আইনজীবী মনজিল মোরসেদ বলেন, ডাকসু নির্বাচনের নির্দেশনা চেয়ে জনস্বার্থে করা রিট মামলার শুনানি শেষে গতকাল রুল যথাযথ ঘোষণা করে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে আগামী ৬ মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচনের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। এছাড়া অন্য এক আদেশে এ বিষয়ে সকল ধরনের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 
ডাকসু নির্বাচন চেয়ে গত বছরের মার্চ মাসে আরেকটি রিট আবেদন করেছিলেন ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মুহাম্মদ মনসুর, সাবেক জিএস মোশতাক হোসেন ও ঢাবি’র শিক্ষার্থী জাফরুল হাসান নাদিম। শুনানি নিয়ে ১৯শে মার্চ রুল জারি করেছিলেন বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। রুলে গত ২৬ বছরে ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠানে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কেন ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠানের নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চাওয়া হয়। রুলের বিবাদী ছিলেন শিক্ষা সচিব, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, প্রক্টর, রেজিস্ট্রার, কোষাধ্যক্ষসহ ছয় জন। আগামী রোববার এই রুলের শুনানি হবে বলে জানান রিটকারীদের আইনজীবী সুব্রত চৌধুরী। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *