শিরোনাম
Home » Top 10 » ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা ছাড়া আর কোনো মামলায় খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি

ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা ছাড়া আর কোনো মামলায় খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা ছাড়া আর কোনো মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি। আজ সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী এসব কথা বলেন। যদিও গত সোমবার সরকারের বিভিন্ন দপ্তর থেকে সংবাদ মাধ্যমকে জানানো হয়, খালেদা জিয়াকে কুমিল্লা এবং ঢাকার তেজগাঁও ও শাহবাগ থানার তিনটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। বেগম জিয়াকে আরও তিনটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখানোর বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় দন্ডপ্রাপ্ত হয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া। সেই মামলায়ই তিনি কারাবন্দি আছেন। এ ছাড়া কোনো মামলায় তাকে শ্যোন আরেস্ট কিংবা এ ধরনের কিছু আমলে আনা হয়নি। তিনি বলেন, তার নামে (খালেদা জিয়া) আরও দুটি মামলায় পিডব্লিউ (প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট) রয়েছে।
সেগুলোতে তিনি যথাসময়ে কোর্টে যাবেন, এ বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই। দুটি মামলায় তিনি জামিনেও আছেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, শাহবাগ থানায় বড় পুকুরিয়া কয়লা খনি (৫৩ নম্বর) দুর্নীতি মামলা রয়েছে। ১৮ ফেব্রুয়ারি তিনি সেই মামলায় হাজিরা দিতে যাবেন। গ্যাটকো দুর্নীতি মামলাও রয়েছে। এ ছাড়া তার নামে যে সব ওয়ারেন্ট রয়েছে সেগুলোর জন্য তাকে অ্যারেস্ট দেখানো হয়নি। এ বিষয়ে একটা ভুল ইনফরমেশন ছড়িয়েছে। শুধু দন্ডপ্রাপ্ত মামলায়ই তিনি কারাবরণ করছেন। খালেদা জিয়ার কারাবাস যাতে দীর্ঘ হয় সরকার সেই চেষ্টা করছে কীনা- এ বিষয়ে আসাদুজ্জামান খান বলেন, সরকার কোনো বিষয়েই কোনো রকম উৎসাহ দেখাচ্ছে না। আইনি প্রক্রিয়া যেভাবে চলে সেভাবেই চলছে। কোর্ট থেকে যে সব সিদ্ধান্ত আসছে, আমরা সেগুলোই বাস্তবায়ন করছি। এখানে কোনো রাজনৈতিক প্রভাব বা অভিলাষ নেই। বিএনপির কর্মসূচিতে পুলিশ সেভাবে বাধা দিচ্ছে না, সরকার নীতিতে কোনো পরিবর্তন এনেছে নাকি বিএনপি চাইলে যে কোনো কর্মসূচি পালন করতে পারবে- এ বিষয়ে জানতে চাইলে কিছুটা হেসে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, সরকার কোন কর্মকান্ডে বাধা দিচ্ছে না। তারা (বিএনপি) যে পর্যন্ত না যানবাহন বা মানুষের চলাফেরায় কোনো প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছে না বা কোনো ধরনের নৈরাজ্য সৃষ্টি করছে না সেই পর্যন্ত সরকারের তরফ থেকে পুলিশ বলুন, আনসার বলুন কেউ অ্যাকশনে যাচ্ছে না। খালেদা জিয়াকে অনেকটা পরিত্যক্ত অবস্থায় থাকা নাজিমউদ্দিন রোডের কারাগারে রাখা হয়েছে। অন্য কোনো কারাগারে কেন রাখা হল না- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, তার সুবিধার জন্যই রাখা হয়েছে। কাশিমপুর দীর্ঘ পথ। অনেক কয়েদি, এতে তার (খালেদা জিয়া) অসুবিধা হত। কেরানীগঞ্জে ফিমেল ওয়ার্ড নেই। তার সামাজিক ভ্যালু রয়েছে, তিনি একাধিকবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। সবকিছু চিন্তাভাবনা করেই তাকে ঢাকায় রাখা হয়েছে। এই জেলখানাটা আমরা পরিত্যক্ত ঘোষণা করিনি। এখানে সব ফ্যাসিলিটি আমরা তাকে দিচ্ছি। তাই কারাগার নিয়ে কোন বিভ্রান্তির সুযোগ নেই। ডিভিশনে যে সব সুবিধা পাওয়ার কথা সব সুবিধাই তিনি পাচ্ছেন। এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে আইন-শঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতার বিষয়ে জানতে চাইলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, আমরা রোজ অ্যারেস্ট করছি। যারা এর সঙ্গে লিঙ্ক আছে তা আমরা খুঁজে বের করার চেষ্টা করছি। সরকার বলছে না প্রশ্ন ফাঁস হয়েছে, তবে ফাঁসের সঙ্গে জড়িত থাকায় গ্রেপ্তার করার বিষয়টি সাংঘর্ষিক কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী বলেন, আমরা গ্রেপ্তার করছি সঙ্গে জানিয়ে দিচ্ছি, এরা এ কাজের সঙ্গে জড়িত, প্রশ্ন ফাঁস হলো কি-না সেটা শিক্ষামন্ত্রী জানেন। প্রশ্ন ফাঁস হয়ে গেছে বলে হইচই করছে, কিংবা পয়সার লেনদেন করছে, কিংবা ফাঁসের চেষ্টা করছে, সেগুলো আমরা দেখছি। প্রশ্ন ফাঁসের সঙ্গে জড়িতদের মূল হোতাদের ধরা হচ্ছে না- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, একটু অপেক্ষা করেন। যারা এ ধরনের ফাঁস করেন, কিংবা চেষ্টা করেন সেই চক্রকে আমরা ধরে ফেলব। আমার সেজন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের পরামর্শ নিয়ে যারা (প্রশ্ন ফাঁস) করছে তাদের ধরে ফেলব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *