Home » টাইমপাস » নগরে লোকাল বাসের মতো যদি নৌকা সার্ভিস চালু হতো

নগরে লোকাল বাসের মতো যদি নৌকা সার্ভিস চালু হতো

নগরে লোকাল বাসের মতো যদি নৌকা সার্ভিস চালু হতো


লেখা : মুহসিন ইরম আঁকা : রাকিব রাজ্জাক
আসেন ভাই আসেন, এই নৌকার বডি পুরান মাগার, ইঞ্জিন নতুন, স্পিডবোডরে ওভারটেক কইরা যাওনের পূর্ণ ক্ষমতা আছে এই নৌকার। চোখ বন্ধ কইরা খোলার টাইম পাইবেন না, দেখবেন মগবাজার হাজির।

সেটা মুখেই বলেন ভাই! লোকাল বাসের মতো টানাহেঁচড়া কইরেন না, টাইমিং মিসটেক হইলে সোজা পানিতে পড়মু…

আসেন আসেন, পুরা নৌকা খালি, গলুই ভরলে পাটাতনে বসবেন, বসতে সংকোচ হইলে দাঁড়ায়া যাইবেন, সমস্যা নাই সমান ভাড়া…

মাঝি, এক কাজ করো, তুমি নাইমা গিয়া তোমার জায়গায় আরেকজনরে বসাও, যাত্রী একজন বেশি পাওয়া গেল!.

দালাল ভাড়া করে চলতো যাত্রী তোলার কাজ

তিল রাখার জায়গা থাকলেও যাত্রী তোলা অব্যাহত থাকত

হই মিয়া! এলাকায় নতুন নাকি, কিসের ১০ টাকা ভাড়া চাও? সাবমেরিনে পর্যন্ত আজীবন দিয়া আসলাম হাফ ভাড়া ৫ টাকা।

সবদিন তো ৫ টাকাই দেন, আইজ শুক্রবার অন্তত ১০ টাকা দেন মামা! এমনেও বৃষ্টি-বাদলের পরিমাণ বেশি বইলা পানি সেচতে আলাদা পোলাপান নিয়োগ দিছি। আপনারা না দিলে কে দিব কন?

মালিবাগ থেইকা মৌচাক যাইতে তো দশটা জায়গায় নৌকা স্টপ দিলা মিয়া, এই জীবনে তুমি মগবাজার যাইবা তো?

খিঁচ্চা বইসা থাকেন তো, জানেন না সরকারি আইনে লেখা আছে ‘নৌকা চালানো অবস্থায় মাঝির সাথে কথা বলা থেকে বিরত থাকুন!’

হাফ-পাস নিয়ে চিরাচরিত দ্বন্দ্বও চোখ এড়াত না

স্থানে স্থানে নৌকা থামিয়ে যাত্রী ওঠা-নামা করাত মাঝি

কারওয়ান বাজার থিকা যে মামারা উঠছেন ভাড়াগুলা হাতে লন। এই মামা! আপনের ভাড়াটা দেন!

কয়বার নিবা ভাড়া, এই পর্যন্ত তো ২০ বার ভাড়া চাইয়া ফেলছো, আর তোমার এই লক্কড়-ঝক্কড় নৌকা সামনে আগায় না ক্যা?

অয় ভাই! আপনি আমার পায়ে লাথি দিলেন কেন?

আমি কই লাত্থি দিছি, আপনেই তো আপনের হাতের ছাতা আমার হাঁটুর ওপর তুইলা বসছেন!

ভাড়া তুলতে গিয়ে মাঝিরা বাস কন্ডাক্টরের মতোই বারবার ভুল করতো

যাত্রীদের বাকবিতণ্ডা খুব স্বাভাবিক

হতো

হায় হায়… আমার মানিব্যাগ!!

লোকাল নৌকায় তো পকেটমার হাঙর-তিমি সেজেও চড়ে মাঝে মধ্যে… পকেট সাবধানে রাখবেন না মিয়া?

মামা বাম পা আগে…

ওই মিয়া স্লো করো,

মহিলা আছে…

নৌকায় পকেট কাটা, ছিনতাই নিত্যকর্ম হিসেবে পরিচিতি পেত

চলন্ত নৌকা থেকে নামতে হতো বাম পা আগে দিয়ে

source:jugantor

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *