শিরোনাম
Home » Top 10 » রাশিয়ায় পোশাক রপ্তানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা চায় বাংলাদেশ

রাশিয়ায় পোশাক রপ্তানিতে শুল্কমুক্ত সুবিধা চায় বাংলাদেশ

রাশিয়ার বাজারে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার চেয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। ২০২৫ সালের ওয়ার্ল্ড এক্সপোর আয়োজক হওয়ার প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের সমর্থনের আশায় ঢাকা সফররত রাশিয়ার প্রতিনিধি দলের প্রধান ও দেশটির ডেপুটি কৃষিমন্ত্রী লেভিন সার্গেই ইভোভিসের কাছে এই সুবিধা দাবি করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী। গতকাল সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন লেভিন সার্গেই ইভোভিস। সেখানে তিনি বাণিজ্যমন্ত্রীকে জানান, তার দেশ ২০২৫ সালের ওয়ার্ল্ড এক্সপোর আয়োজক হতে চায়। এ জন্য বাংলাদেশের সমর্থন তাদের দরকার হবে। এর পরেই বাণিজ্যমন্ত্রী তাকে বলেন, আপনাদের দেশের সঙ্গে আমাদের সব ধরনেই সম্পর্কই ভালো।

রাশিয়ায় এখন ৭১টি বাংলাদেশি পণ্য শুল্কমুক্ত সুবিধা পায়। মন্ত্রী তাকে জানান, বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের ভালোই চাহিদা আছে রাশিয়ায়। কিন্তু সেখানে এই পণ্যটির শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার নেই। তিনি বলেন, রাশিয়া বাংলাদেশের তৈরি পোশাকে শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার পেলে দুই দেশের বাণিজ্য সম্পর্ক আরো গাঢ় হবে। রাশিয়াকে ২০২৫ সালের ওয়ার্ল্ড এক্সপোর আয়োজক হতে বাংলাদেশ সমর্থন দেবে কীনা?- এমন প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সেটা আমরা পরে সিদ্ধান্ত নেব। আমরা তাদের কাছে কিছু বিষয় চেয়েছি। দেখা যাক কী হয়। মন্ত্রী বলেন, রাশিয়ার সঙ্গে বাণিজ্য জটিলতা দূর করতে বাংলাদেশ কিছুদিন আগে ইউরেশিয়ান ইকোনমিক কমিশনের সদস্য হতে সমঝোতা চুক্তিতে সই করেছে। কিছুদিনের মধ্যেই বাংলাদেশ এ কমিশনের সদস্য পদ লাভ করবে। তখন রাশিয়ার সঙ্গে বাণিজ্য করতে কোনো জটিলতা থাকবে না। তোফায়েল আহমেদ বলেন, রাশিয়া বাংলাদেশের ঘনিষ্ঠ বন্ধু। বিভিন্ন বিষয়ে রাশিয়া বাংলাদেশকে সহায়তা দিয়ে থাকে। রাশিয়া বাংলাদেশে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে প্রায় ১২ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করেছে। এটি দেশে সবচেয়ে বড় বিদেশি বিনিয়োগ। এখানে দুই হাজার ৪০০ মেগা ওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হবে। আগামী ২০২৪ সালে এটি চালু হবে। 

তিনি বলেন, রাশিয়ায় বাংলাদেশের উৎপাদিত আলুর প্রচুর চাহিদা রয়েছে। রাশিয়ায় আলু রপ্তানির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। গত ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশ ৪৬৪.৬২ মিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য রপ্তানি করেছে। একই সময়ে আমদানি করেছে ৪৩৭.১০ মিলিয়ন ডলার মূল্যের পণ্য। রপ্তানি বাণিজ্যে জটিলতা দূর হলে রাশিয়া বাংলাদেশের বড় রপ্তানি বাজার হবে। মন্ত্রী বলেন, ফ্রান্সও কিন্তু আমাদের সমর্থন চেয়েছে। তাদের প্রতিনিধি বাংলাদেশ ঘুরে গেেেছন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *