Home » Top 10 » সিলেটে ২ দিন ধরে ব্যবসায়ী মুন্না নিখোঁজ

সিলেটে ২ দিন ধরে ব্যবসায়ী মুন্না নিখোঁজ

নিজ দোকান থেকে পিছু নিয়েছিল অপরিচিত দুই ব্যক্তি। তাদের দেখে সন্দেহ হয় ব্যবসায়ী মুন্নার। হুড়োহুড়ি করে ঢুকেন মামা মুছার দোকানে। সঙ্গে থাকা ১০ হাজার 
টাকা ও মোবাইল ফোন রেখে দেয় মামার দোকানে। বলেন- ‘এই টাকা ও মোবাইল রাখুন। আমাকে দুই জন লোক ফলো করছে তাদের দেখে আসি।

এ কথা বলে সে বেরিয়ে যায়।’ আর ফিরেনি সিলেটের হাওলদারপাড়ার ব্যবসায়ী আব্দুল্লাহ আল মামুন মুন্না। তাকে খুঁজে না পেয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে পরিবার। নানা শঙ্কা আর আতঙ্ক পরিবারের সদস্যদের ঘিরে ধরেছে। মুন্না নিখোঁজের ঘটনায় মদিনা মার্কেটসহ এলাকার ব্যবসায়ীদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। মুন্নার বাড়ি সিলেট নগরীর হাওলদারপাড়ায়। তার পিতার নাম ছমির উদ্দিন। একই এলাকার হাজি ইদ্রিস আলী মার্কেটের ব্যবসায়ী সে। তার দোকানের নাম মাহিন স্টোর। মুন্না ওই এলাকার জনপ্রিয় ব্যবসায়ী। মুন্নার পিতা ছমির উদ্দিন গতকাল বিকালে মানবজমিনকে জানিয়েছেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন মুন্না বুধবার বিকাল ৩টা পর্যন্ত দোকানে ছিল। এরপর দোকানের মালপত্র কেনার জন্য ১০ হাজার টাকা ও মোবাইল ফোন নিয়ে বের হয়। নিজ দোকান থেকে বের হওয়ার পর মুন্না দেখেন, তাকে দুই জন অপরিচিত লোক ফলো করছে। এ সময় মুন্না পশ্চিম পাঠানটুলায় রাগিব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের গলির মুখে থাকা মামা মুছা মিয়ার মা ভ্যারাইটিজ স্টোরে গিয়ে ঢোকেন। এ সময় মামার কাছে টাকা ও মোবাইল ফোন রেখে বলেন- এই টাকা ও মোবাইল রাখুন। আমাকে দুই জন লোক ফলো করছে তাদের দেখে আসি। এ কথা বলে সে বেরিয়ে যায়।’ এ সময় তার মামা একা না যাওয়ার জন্য বলেন। জবাবে মুন্না বলে, না কাউকে লাগবে না। দেখে আসি কারা ফলো করছে।’ এই কথা বলে মুন্না চলে যায়। সন্ধ্যা পেরিয়ে গেলেও মুন্না নিজের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ফেরেনি। এরপর তার সন্ধান শুরু হয়। কিন্তু কোথাও তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। ছমির উদ্দিন জানিয়েছেন, তার ছেলের সঙ্গে কারো কোনো শত্রুতা নেই। কারো সঙ্গে দেনা-পাওনা নেই। এই অবস্থায় মুন্নার পরিবারের সদস্যরা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন। গতকাল সিলেটের জালালাবাদ থানায় মুন্নার পিতা ছমির উদ্দিন জিডি করেছেন। মদিনা মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আমির হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমদ দ্রুত মুন্নার সন্ধান বের করার জন্য প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান। সিলেটের জালালাবাদ থানার ওসি শফিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, মুন্নার নিখোঁজের ঘটনায় থানায় জিডি নেয়া হয়েছে। পুলিশ মুন্নার সন্ধানে রয়েছে। সে টাকা ও মোবাইল ফোন রেখে যাওয়ার বিষয়টি রহস্যজনক বলে জানান তিনি। এদিকে, ব্যবসায়ী মুন্না নিখোঁজের ঘটনায় এলাকাবাসীও উদ্বিগ্ন। গতকাল রাতে সিলেটের হাওলদারপাড়ায় স্থানীয় হাওলদারপাড়া সমাজ কল্যাণ যুব সংঘের কার্যালয়ে এলাকাবাসীর এক সভা হয়। ওই সভায় তারা নিখোঁজ মুন্নাকে খুঁজে বের করার জন্য প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন- ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ইলিয়াসুর রহমান ইলিয়াস, সংগঠনের উপদেষ্টা আব্দুল হাদী মাসুম, সেলিম আহমদ, মো. লেইস মিয়া, আব্দুর রাজ্জাক রাজন, গোলাম কাদির, আলী হোসেন মুক্তা, শাহীন আহমদ, রিয়াজ আহমদ, ফয়জুল হক ও সাহেদ আহমদ প্রমুখ। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *