Home » Top 10 » জোর করে পাঠানো হলে প্রধান বিচারপতিই বলতেন: ওবায়দুল কাদের

জোর করে পাঠানো হলে প্রধান বিচারপতিই বলতেন: ওবায়দুল কাদের

প্রধান বিচারপতিকে জোর করে বিদেশে পাঠানো হচ্ছে না উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রধান বিচারপতি মেরুদণ্ডহীন  কেউ নন, ও রকম কিছু হলে উনিই বলতেন। গতকাল বুধবার রাজধানীর উত্তরায় মেট্রোরেল প্রকল্পের অগ্রগতি পরিদর্শনের সময় এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন। তিনি বলেন, তাকে (প্রধান বিচারপতি) জোর করে পাঠানো হচ্ছে না। তিনি নিজেই বলুন তাকে  জোর করে পাঠানো হচ্ছে কি-না। উনি কি  মেরুদণ্ডহীন কেউ যে, তিনি বলবেন না সে রকম কিছু হলে? প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে বক্তব্যের জন্য বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সমালোচনা করেন ওবায়দুল কাদের। বিএনপি মহাসচিব ‘প্রলাপ’ বকছেন মন্তব্য করে তিনি বলেন- উনাকে কাঁদতে বলেন। চোখের জল ফেলা ছাড়া তো উনার আর করার কিছু দেখছি না। কারণ চেয়ারপারসন আসবেন, আসবেন, কবে আসবেন কেউ জানে না। নেতাকর্মীরা হতাশ। কাজেই উনি এখন এটা-সেটা বলে  কোনো রকমে নেতাকর্মীদের চাঙ্গা রাখা যায় কি-না সে ব্যর্থ প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন। মির্জা ফখরুলের এখন করার কিছু নেই মন্তব্য করে কাদের বলেন, তার অবস্থায় পড়লে আমার কী হতো, আমি জানি না। তবে আমাদের ভাগ্যে সেটা ঘটেনি। বৃহস্পতিবার জামায়াতে ইসলামীর হরতালে সহিংসতার ‘সুযোগ নেই’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, সহিংসতা সৃষ্টি করে এদেশে যে কোনো আন্দোলন গড়ে তোলা যায় না, তার প্রমাণ ৫ই জানুয়ারি পরবর্তী বিএনপির অবরোধের ডাক। তখন নানা ধরনের সহিংসতা ঘটানো হয়েছিল। মানুষ পুড়িয়ে মারা হয়েছিল। কিন্তু এর রেজাল্ট কী হলো? বিএনপি এবং তার সহযোগীরা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। হরতালে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মাঠে থাকবে কি-না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, বিরোধী দল এখন শক্তিহীন। সে অবস্থায় এখন আর আমাদের অপজিশন কেউ নেই। আন্দোলন করার সক্ষমতা তাদের নেই। আর যখনই আন্দোলন সহিংসতায় রূপ নেবে, তখন জবাবও হবে সেই রকম। জামায়াত  নেতাদের গ্রেপ্তার বিষয়ে তিনি বলেন, পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা যদি আপনাকে  কোনো ষড়যন্ত্র বা কোনো সহিংসতার প্রস্তুতি  বৈঠকে হাতেনাতে পায়, সে অবস্থায় আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা তো বসে থাকবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *