Home » Top 10 » আত্মবিশ্বাস থাকলে যেকোনো কঠিন কাজ করা যায়: জয়

আত্মবিশ্বাস থাকলে যেকোনো কঠিন কাজ করা যায়: জয়

প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেছেন, সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে আমরা পদ্মা সেতু নির্মাণ করে যাচ্ছি। পদ্মা সেতু এখন দৃশ্যমান। সৎ সাহস ও নিজের আত্মবিশ্বাস থাকলে যেকোনো কঠিন কাজ করা যায়। আমরা কারো চেয়ে কম নই। বিদেশের সঙ্গে আমরা সমানে সমান। সত্য-মিথ্যা যাচাইয়ে বিদেশি সার্টিফিকেট প্রয়োজন নেই।

গতকাল বিকালে রাজধানীর একটি হোটেলে সুচিন্তা ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘রাজনীতিতে সত্য-মিথ্যা: পদ্মা সেতুর অভিজ্ঞতা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।  জয় বলেন, আমাদের সুশীলদের মধ্যে একটি শ্রেণি আছে তাদের কাজ সারা দুনিয়া ঘুরে বেড়ানো। দেশে এসে তাদের আর কোনো কাজ নেই। তারা এনজিও করে, সেমিনার করে, বক্তব্য দিয়ে বেড়ায়। এই এনজিও সেমিনার কার পয়সায় চলে? বিদেশিদের। এটা তাদের ব্যবসা। তারা হচ্ছে বিদেশিদের গোলাম। সরকারের সমালোচনা না করলে তারা বিদেশ থেকে টাকা আনতে পারবে না। তাদের আয় বন্ধ হয়ে যাবে। এই সুশীলরাই বলেছিলো নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু করলে অর্থনীতিতে চাপ পড়বে। কিন্তু আমরা নির্মাণ করে প্রমাণ করেছি, কোনো চাপ পড়েনি। তিনি আরো বলেন, সুশীলদের একটা রূপ আছে, তারা মনে করে আমরা তো উচ্চ শিক্ষিত, ইংরেজি বলি, বিদেশিদের সঙ্গে খাতির, এত টাকা-পয়সা বানিয়েছি এখন দরকার ক্ষমতা। কিন্তু মানুষের ভালোবাসা ছাড়া ক্ষমতায় আসা যায় না। ওয়ান ইলেভেনে ড. ইউনূস চেষ্টা করেছিল, কিন্তু পারেন নি। পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন না করতে সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের মাধ্যমে ড. ইউনূস বিশ্বব্যাংককে প্রভাবিত করেছিলেন বলে দাবি করেন প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। তিনি বলেন,  বিশ্বব্যাংকের উচ্চপর্যায় থেকে আমাদের জানানো হয়েছে ড. ইউনূস হিলারি ক্লিনটনকে অনুরোধ করেন বিশ্বব্যাংক যেন বাংলাদেশকে শাস্তি দেয়। এ কারণেই বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতু থেকে সরে গেছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাথা নত করেননি। আমেরিকান অ্যাম্বেসির একজন প্রতিনিধি আমাকে হাসতে হাসতে দুইবার হুমকি দিয়েছিলেন, বলেছিলেন তোমার ট্যাক্সের অডিট হতে পারে। আমিও হাসতে হাসতে উড়িয়ে দিয়ে বলেছিলাম, করতে পারো, কিছুই পাবে না। সুচিন্তা ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন মোহাম্মদ এ আরাফাতের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন, কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন।